June 12, 2021, 5:41 pm

সিদ্ধিরগঞ্জে মায়ের হাতে ছেলে খুন খোঁজ মিলছে না মায়ের

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার পাইনাদি নতুন মহল্লার ৩ নম্বর রোডে নিজ ঘরে নাজমুল সাকিব নাবিল (২০) নামের এক তরুণকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার রাত ৯টার দিকের এ ঘটনায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর থেকে নাবিলের মানসিক ভারসাম্যহীন মা নাছরিন বেগমকে পাওয়া যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে, ছেলেকে কুপিয়ে কোথাও চলে গেছেন তিনি।

নিহত নাবিল ডেমরার শুকুরশী এলাকায় দারুল নাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে এ বছর আলিম পরীক্ষার্থী ছিল। তার বাবা ছগির আহমেদ ইসলামী ব্যাংক নারায়ণগঞ্জ শাখায় কর্মরত।

তিনি জানান, রোববার সকালে তিনি কর্মস্থলে যান। রাতে বাসায় ফিরে ঘর বাইরে থেকে তালাবদ্ধ দেখতে পান। পরে তার কাছে থাকা চাবি দিয়ে তালা খুলে ঘরে প্রবেশ করে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায়

তার ছেলে মেঝেতে পড়ে আছে। তার বুকে ও পেটে মাথায় ধারালো আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ সময় স্ত্রী নাছরিন বেগমকে বাসায় পাননি। দ্রুত ছেলেকে উদ্ধার করে প্রথমে সাইনবোর্ড এলাকার প্রো-অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাত ২টার দিকে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

ছগির আহমেদ আরও জানান, চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি নাবিলকে পারিবারিকভাবে বিয়ে করান। ঈদের দু’দিন পর নাবিলের স্ত্রী ইমা বাপের বাড়ি বেড়াতে গিয়ে সেখানেই ছিলেন। নাবিল খুন হওয়ার খবর পেয়ে সোমবার সকালে সে ঢাকা মেডিকেলে ছুটে যান।

তিনি বলেন, তার সঙ্গে কারো কোনো শত্রুতা নেই। তার স্ত্রী মানসিক ভারসাম্যহীন। মাঝে মাঝে তার স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। ধারণা করা হচ্ছে, তার স্ত্রী ছেলেকে খুন করে কোথাও চলে গেছে।

ছগির আহমেদের গ্রামের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের পৈতারগাঁও এলাকায়। সিদ্ধিরগঞ্জে পাইনাদী নতুন মহল্লায় বাড়ি কিনে স্ত্রী ও সন্তান নাবিলকে নিয়ে থাকছিলেন তিনি।

খুনের খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল-ক) ইমরান সিদ্দিকী ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, মানসিক ভারসাম্যহীন নাছরিন বেগম ছেলেকে কুপিয়ে পালিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানিয়েছে ছগি আহমেদ।

এই বিভাগের আরও খবর


ফেসবুকে আমরা