June 12, 2021, 6:04 pm

ভোকেশনালে খেলার মাঠ রক্ষার দাবীতে অধ্যক্ষকে আবেদন

নারায়ণগঞ্জ ঐতিহাসিক ভোকেশনাল মাঠে তৈরী করা হচ্ছে ৫ তলা ভবন! শিশু কিশোর ও কোমল মতি শিক্ষার্থীদের প্রাণের মাঠের উপরে এধরনের ভবন নির্মাণ কতটুকু যুক্তিযুক্ত প্রশ্ন অভিবাবক সহ এলাকাবসীর !

সূএে যানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন আইলপাড়া পাঠানটুলীতে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ।
১৯৮৪ সালে প্রায় ৬.৫ একর জমির উপর বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন ভোকেশনাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউট হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয় ।তখনকার সময়ে অটোমোবাইল,ওয়োল্ডিং,রেডিও টিভি, আর এসি এই ৪টি ট্রেডে বেকার যুবকদের জন্য ট্রেনিং প্রদান করে সাবলম্বি হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন, যা পরবর্তীতে এস এস সি ও এইচ এস সি পর্যায়ে নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ নামে পরিচিত।

বর্তমান সরকার দেশের কারিগরি শিক্ষাকে আরো বিকশিত করার লক্ষে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক দেশের ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে Capacity Building for Exiting 64 Technical Schocl & College প্রকল্পের অর্থায়নে ৫ তলা একাডেমি -কাম -ওয়ার্কসপ ভবন নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করার কাজ হাতে নেয়। তারই অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন আইলপাড়া পাঠানটুলী এলাকায় স্হাপিত “নারায়নগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ” (ভোকেশনাল) এর উন্মুক্ত খেলার মাঠটির মধ্যে উক্ত ভবন নির্মান করতে গেলে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ এলাকাবাসী নজড়ে পড়ে। তাদের সকলের দাবী কতৃপক্ষের এ আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে প্রতিষ্ঠানের উত্তর পশ্চিম দিকে ছাত্রাবাসের সাথে যে জায়গা পরিত্যাক্ত পরে আছে ওখানে ভবনটি করার জন্য।

এ ঘটনায় অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকার জনসাধারণসহ সকলে নবনির্মিত ভবন নির্মাণ কাজের জন্য বিষ্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সকলের মতে খেলার মাঠটি বিনষ্ট না করে পরিত্যাক্ত ভবনের স্হানে বা পরিত্যক্ত জমিতে ভবন নির্মাণ করা সম্ভব।এ দাবীতে শিক্ষার্থী,অভিভাবক ও এলাকাবাসী অধ্যক্ষ বরাবরে ৩১ মে সোমবার বেলা বার ঘটিকায় একটি আবেদন জমা দেন। এ আবেদনটি গ্রহন করেন অধ্যক্ষের অনুপস্থিতিতে প্রতিষ্ঠানের ইনষ্ট্রাকটর রসায়ন বিভাগ এর লিটন চন্দ্র সাহা নিকট শিক্ষার্থী,অভিভাবক ও এলাকাবাসীর গনস্বাক্ষক কৃত আবেদন পএ জমাদেন খেলার মাঠটি অক্ষত রাখার।এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অত্র এলাকার পঞ্চায়েত প্রধান ইসমাইল মাদবর.
সাবেক জাতীয় ফুটবলার মোতালেব হোসেন.
সমাজকর্মি মোহাম্মদ শাহজাহান,
আব্দুল আলী ফকির স্মৃতি সংসদের প্রধান সমন্বয়ক গোলাম মোস্তফা সা্চ,
সাবেক জাতীয় দলের অধিনায়ক মোহাম্মদ সুজন,
জাতীয় ফুটবল খেলোয়াড় সোহেল রানা,
মতিউর রহমান শরীফ.,
কামরুল হাসান শাকিল.
মোঃ আবু সাঈদ,
মোঃ সজল,
মোঃ ইসমাইল হোসেন তারিফ,
আমিনুল ইসলাম রকি,
মোঃ হাসান,
সোহান,
মারুফ সজল,
ইমরুল হাসান লিমন সহ শিক্ষার্থী ও অভিভাবক বৃন্দ।

আবেদনকৃত শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর কাছে এ আবেদন করার বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বলেন,আমাদের আবেদন হচ্ছে যেখানে অপরিত্যাক্ত ভবন ও জমি পরে আছে সে জমি ব্যবহার না করে কেন কর্তৃপক্ষ পরিকল্পনা বিহীন শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ টি বিলিন করে ভবন নির্মাণ কাজ করছেন। একজন অবিভাবক বলেন এটা বর্তমান সরকার কোন ভাবেই করার কথানা , যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা স্কুল প্রতিষ্ঠানে খেলার মাঠ রাখার ; আজ সেখানে খেলাধুলার জন্য ব্যবহার না করে মাঠ বিলুপ্ত করে দেয়া হচ্ছে। নিশ্চয়ই এখানে ষরযন্ত্র ও ঠিকাদারকে সুবিধা দেওয়ার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সরকারের কাছে ভুল ব্যাখ্যা প্রদান করেছন। নতুবা এত পরিত্যাক্ত জায়গা থাকতে সরকার এমন আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা নয়। অবশ্যই এটা সরকারের নীতি নির্ধারনী মহলে সঠিক তথ্য তুলে ধরে এখনো নতুন জায়গায় ভবনটি স্থানান্তর সম্ভব বলে উক্ত অবিভাবক মত প্রকাশ করেন।

এই বিভাগের আরও খবর


ফেসবুকে আমরা