June 12, 2021, 6:28 pm

এম এ রশিদকে অভিনন্দন জানানোর দায়ে সেক্রেটারির পদ থেকে অব্যাহতি পেলেন শরীফুল

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশিদ কে নারায়ণগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করায় বন্দর মডেল প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানান বলেই সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়ে।

গত বৃহস্পতিবার বন্দর মডেল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. শরীফুল ইসলাম তার ব্যাক্তিগত ফেইসবুক আইডি থেকে পোষ্ট করলেই সংগঠনের সভাপতির সাথে পোষ্ট করার বিষয়টি নিয়ে তর্ক হয়। এর প্রেক্ষিতে গত ৩০ মে সাংগঠনিক নিয়মবহির্ভূত ভাবে কোন মিটিং ছাড়াই মিথ্যো স্বাক্ষর নিয়ে তাকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে অনিদিষ্ট সময়ের জন্য অব্যাহতি দেয়া হয়। যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারেন।

এদিকে, বন্দর মডেল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. শরীফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, সংগঠনের নিয়ম বহির্ভূতভাবে আমাকে সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে কোন প্রকার মিটিং বা অগ্রিম নোটিশ না দিয়েই দায়িত্ব থেকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য অব্যাহতি প্রদান করা হয়। যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারি। যা সম্পূর্ন বেআইনী মনগড়া, কোন ভাবেই আইন সম্মত নয় এবং গঠনতন্ত্র বিরোধী। আমাকে অব্যাহতি দিতে হলে পর পর ৩টি কারণ দর্শানো নোটিশ দিতে হবে। কিন্তু গত ৩০ মে নোটিশ দেয়ার নামে মিথ্যা সাক্ষর নিয়ে আমাকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়।

তিনি আরও বলেন, বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ রশিদ সাহেবকে নারায়ণগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার আমার ফেইসবুক আইডি থেকে সংগঠনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে একটি পোষ্ট দিয়েছি বলে সভাপতি সাহেব পোষ্টটি ডিলেট করতে বলে। মূলতঃ পোষ্টটি ডিলেট না করাতে ব্যাক্তি স্বার্থ হাসিলের জন্য সাংগঠনিক নিয়মের বাহিরে আমাকে একটি কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হলে আমি তা গ্রহণ করিনি।

স্বাক্ষরকারী বন্দর মডেল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান খান বাদল জানান, আমাকে ফোন করে সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়ে দেখি সংগঠনের আরও ৭জন উপস্থিত ছিলো। কিন্তু কোন মিটিং কল করা হয়নি, সাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলাসকে নোটিশ দিবে বলে আমার কাছ থেকে স্বাক্ষর নেয় কিন্তু ৩০ মে আমি আমি দেখতে পারি সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। যা করেছে তা সাংগঠনিক নিয়েমের বাহিরে করেছে।

সংগঠনের সহ-সভাপতি আনোয়ার পারভেজ সুজন বলেন, নোটিশের বিষয় স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে কিন্তু অব্যাহতি দিবে এটা আমি জানি না।

প্রচার ও দপ্তর সম্পাদক জিয়া বলেন, সংগঠন আবার নতুন করে সাজানো হবে এজন্য রাস্তার উপর থেকেই আমার কাছ থেকে স্বাক্ষর নেয়া হয়।

এই বিভাগের আরও খবর


ফেসবুকে আমরা