April 14, 2021, 8:36 am

সোনারগাঁওয়ে ব্রিজের নিচ থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত যুবকের লাশের পরিচয় সনাক্ত

সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যেরবাজর ইউনিয়ন একটি ব্রিজের নিচ থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত যুবকের পরিচয় সনাক্ত।

চাকরিতে যোগদান করতে গিয়ে পরিবারের মাঝে আর ফিরে আসা হলো না জয়পুরহাটের মেধাবী ছাত্র সাগর ইসলামের।

প্রতারক চক্রের সদস্যরা তাকে হত্যা করে নারায়ণগঞ্জের একটি ব্রিজের নিচে ফেলে যায়।
মরদেহ দাফন হওয়ার এক সপ্তাহ পর ছেলের মৃত্যুসংবাদে শোকের মাতম পড়ে গেছে সাগর ইসলামের বাড়িতে। পুলিশ বলছে, ইতোমধ্যেই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ঢাকার শ্রীপুর থেকে ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।
সন্তানের মৃত্যুর সংবাদে মা আলেয়া বেগমের বুক ফাটা আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ। স্বজনদের কোনও সান্ত্বনা যেন তাকে থামানো যাচ্ছে না।
পরিবারের সদস্যরা জানান, গত ৪ মাস আগে পাঁচবিবি উপজেলার উচনা গ্রামের আব্দুর রউফসহ ৪ প্রতারক সাগরকে মন্ত্রণালয়ে অফিস সহকারী পদে চাকরি দেওয়ার কথা বলে তার বাবা আব্দুর রশিদের সঙ্গে ৭ লাখ টাকার চুক্তি করে। জমি ও গরু বিক্রি করে পর্যায়ক্রমে ৭ লাখ টাকা হাতে দেওয়ার পর তারা সাগরকে একটি নিয়োগপত্র তুলে দেয়।
এরপর তাদের কথা অনুযায়ী, গত ২৩ মার্চ সাগরকে ঢাকায় পৌঁছে দেয় তার বাবা।
পরে পুলিশ ২৫ মার্চ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার খংশারদি ব্রিজের নিচ থেকে মরদেহ উদ্ধার করে অজ্ঞাতপরিচয়ে দাফন করে।
এরপর মোবাইল ফোনের সিম কার্ডের আইডেন্টিটি অনুযায়ী পাঁচবিবি থানায় যোগাযোগের মাধ্যমে সাগরের মরদেহ শনাক্ত করা হয়। এ ঘটনায় দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছে স্বজন, প্রতিবেশী ও স্থানীয় জন প্রতিনিধি।
স্থানীয় পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব জানান, সোনারগাঁও থানা পুলিশের ইনফরমেশন অনুযায়ী সাগরের পরিচয় শনাক্ত করে তার বাবাকে মরদেহ গ্রহণের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
এ বিষয়ে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলার পর ইতোমধ্যেই ঢাকার শ্রীপুর থেকে ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।
হত্যাকাণ্ডের শিকার সাগর ইসলামের পরিবারের দেওয়া তথ্যমতে, এই চক্রের সদস্যরা হলেন জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার সীমান্তবর্তী উচনা গ্রামের আব্দুর রউফ, হরেন্দা গ্রামের গোলাম রাব্বানী, আব্দুল আলীম ও জয়পুরহাট শহরের রবি

এই বিভাগের আরও খবর


ফেসবুকে আমরা